1. sparkleit.bd@gmail.com : K. A. Rahim Sablu : K. A. Rahim Sablu
  2. diponnews76@gmail.com : Debabrata Dipon : Debabrata Dipon
  3. admin@banglanews24ny.com : Mahmudur : Mahmudur Rahman
  4. mahmudbx@gmail.com : Monwar Chaudhury : Monwar Chaudhury
কামরুলের পরিকল্পনাতেই বুলবুল হত্যা
সোমবার, ০৮ অগাস্ট ২০২২, ০৬:৩২ অপরাহ্ন




কামরুলের পরিকল্পনাতেই বুলবুল হত্যা

বাংলানিউজএনওয়াই ডেস্ক
    আপডেট : ০১ আগস্ট ২০২২, ১০:৫৩:৫৬ অপরাহ্ন

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) শিক্ষার্থী মো. বুলবুল আহমেদ (২২)কে ছিনতাইকারী কামরুলের পরিকল্পনাতেই  হত্যা করা হয়েছে। আদালতে বিচারক মো. সুমন ভূঁইয়ার কাছে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এমন কথা জানিয়েছেন হত্যার অভিযোগে গ্রেফতারকৃত তিন আসামী।

গত ২৫ জুলাই নিজ ক্যাম্পাসে খুন হন সিলেটের তবে ঘটনার ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে খুনের সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় পুলিশ। হত্যার অভিযোগে যে তিনজনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে তারা আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে হত্যার ঘটনা বর্ণনা দিয়েছেন। কীভাবে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের মধ্যেই হত্যাকাণ্ডটি ঘটেছে, সেটি উঠে এসেছে তাদের জবানবন্দিতে।

ঘটনার পরদিন (২৬ জুলাই) মো. আবুল হোসেন (১৯) নামের একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে পরদিন গ্রেপ্তার করা হয় মো. হাসান (১৯) ও কামরুল আহমদ (২৬) নামের আরও দু’জনকে। তারা তিনজনই বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্শ্ববর্তী টিলারগাঁও এলাকার বাসিন্দা। তারা তিনজনই পেশায় রাজমিস্ত্রি, তবে সময়-সুযোগ বুঝে ছিনতাইও করে থাকেন তারা।

গ্রেপ্তারের পর তারা তিনজনই সিলেটের মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট দ্বিতীয় আদালতের বিচারক মো. সুমন ভূঁইয়ার কাছে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে গিয়ে কীভাবে বুলবুলকে তাঁরা হত্যা করেন, সেই লোমহর্ষক বর্ণনা দেন তারা আদালতে।

তাদের জবানবন্দি থেকে জানা যায়, ২৫ জুলাই সন্ধ্যায় মো. হাসান মুঠোফোনে কামরুল আহমদকে কল দেন। হাসান মুঠোফোনে কামরুলকে জানান, গাজী-কালুর টিলায় একটি ছেলে (বুলবুল) ও একটি মেয়ে (বুলবুলের বান্ধবী মার্জিয়া উর্মি) বসে কথা বলছেন। মো. আবুল হোসেন তাদের নজরদারিতে রেখেছেন। এই ছেলেমেয়েদের কাছ থেকে জিনিসপত্র ছিনতাই করা যাবে বলে কামরুলকে জানান তিনি। এর ১০ থেকে ১২ মিনিটের মধ্যে টিলায় এসে পৌঁছান কামরুল। এরপর হাসান ও আবুলকে বুলবুল-উর্মির কাছে পাঠান তিনি।

কামরুল তার জবানবন্দিতে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের বৈদ্যুতিক বাতির আবছা আলোয় একপর্যায়ে তিনি দেখেন, হাসান ও আবুল ছেলেটির সঙ্গে ধস্তাধস্তি (মারামারি) করছেন। তা দেখে তিনিও এগিয়ে যান। পরে দেখেন, আবুল ও হাসান ছেলেটিকে টেনে একটু ভেতরের দিকে নিয়ে যায়। এ সময় মেয়েটি পাশেই দাঁড়িয়ে ছিলেন এবং ভয়ে চিৎকারও করতে পারছিলেন না।

কামরুল জবানবন্দিতে আরো বলেন, তারা যখন বুলবুলের কাছে মোবাইল ফোন ও মানিব্যাগ চাই, তখন বুলবুল নিজেকে ভার্সিটির ছাত্র দাবি করে মোবাইল-মানিব্যাগ দিতে অস্বীকার করেন এবং চিৎকার করে আরও ছাত্রদের ঘটনাস্থলে নিয়ে ছিনতাইকারীদের শায়েস্তা করার ভয় দেখান। বুলবুল যখন জোর করছিলেন, কামরুল তখন বুলবুলের পরণের শার্টের সামনের দিকের কলার ধরে পকেটে থাকা ছুরি বের করে তাঁর বুকে প্রথম আঘাত করেন। এসময় বুলবুল নুইয়ে পড়লে পিঠ বরাবর একটি ও ডান হাতের বাহুতে আরেকটি আঘাত করেন।

তিনজনের জবানবন্দি থেকে আরও জানা যায়, বুলবুলকে আঘাতের পর তিনজনই ভয় পেয়ে যান এবং দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন। এরপর হাসান ঘটনাস্থল থেকে নিয়ে আসা বুলবুলের মুঠোফোন কামরুলকে দেন। কামরুল সেই মুঠোফোন ও ছিনতাই কাজে ব্যবহৃত ছুরি তার বাসায় বাঁশের চাটাই দিয়ে বানানো ছাদের ওপর রাখেন। পরে গ্রেপ্তার হওয়ার পর কামরুলের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী পুলিশ ওই জায়গা থেকে মুঠোফোন ও ছুরি উদ্ধার করে।

জবানবন্দিতে মো. আবুল হোসেন জানান, ঘটনার দিন বিকেল চারটার দিকে হাসান ও তিনি গাঁজা সেবন করার জন্য গাজী-কালুর মাজারের টিলায় গিয়েছিলেন। মাজারের পূর্ব দিকে বসে সিগারেটের ভেতর গাঁজা ঢুকাচ্ছিলেন তারা। এ সময় তারা দেখেন, মাজারের পশ্চিম দিকে একটি ছেলে ও একটি মেয়ে বসে কথা বলছেন। গাঁজা সেবন শেষ হলে হাসান মুঠোফোনে কামরুলকে কল করে বলেন, ‘কামরুল ভাই, টিলা একেবারে নিরালা, ছাত্রছাত্রী আছে, ধান্ধা করা যাইব।’ এরপরই কামরুল ঘটনাস্থলে আসেন।

মো. আবুল হোসেন জবানবন্দিতে বলেন, ‘বুলবুল মোবাইল বা মালামাল দিতে রাজি হয় না। কিন্তু বান্ধবী রাজি হয়ে যায়। বুলবুল মোবাইল না দিয়ে হাসান এবং কামরুলের সঙ্গে ধস্তাধস্তি শুরু করেন। ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে বুলবুলের পকেট থেকে তাঁর মোবাইল পড়ে যায়, মেয়েটা আনুমানিক ৮-১০ হাত দূরে দাঁড়ানো অবস্থায় ছিনতাইকারীদেরকে বুলবুলকে ছেড়ে দিয়ে মোবাইল ফোন নিয়ে চলে যেতে বলে। কিন্তু বুলবুল মোবাইল দেবে না জানিয়ে হাসান ও কামরুলের সঙ্গে ফের ধস্তাধস্তি শুরু করে।’

জবানবন্দিতে আবুল আরও বলেন, ‘হাসান মাটিতে পড়ে যাওয়া মোবাইলটা নিচ্ছিল, এমন সময় কামরুল তার পকেট থেকে ছুরি বের করে বুলবুলের শার্টের কলারে ধরে তার বুকে, পিঠে, বাহুতে তিনটি আঘাত করে। বুলবুল মাথা ঘুরে যখন মাটিতে পড়ে যায়, হাসান তখন বুলবুলের মোবাইলটি কামরুলের কাছে দেয়। এসময় উর্মি চিৎকার করছিলেন। তখন তারা (ছিনতাইকারীরা) ভয়ে গাজী-কালুর মাজারের পূর্ব দিকে অডিটরিয়ামের পেছন দিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায়।’

মো. হাসান তাঁর জবানবন্দিতে জানান, কামরুল ঘটনাস্থলে আসার সময় লাকড়ি কাটার লোহার হাতলওয়ালা একটি দা নিয়ে আসেন। সেই দা আবুলের কাছে দেন কামরুল। পরে আবুল ওই দা বুলবুলের গলায় ধরে ভয় দেখিয়ে তাঁকে একটু ভেতরের দিকে নিয়ে যান।

আসামিদের জবানবন্দি ও মামলার সার্বিক তদন্ত বিষয়ে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের (এসএমপি) উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর) মো. আজবাহার আলী জানান- তিন আসামির জবানবন্দির মাধ্যমে বুলবুল হত্যায় কার কী ভূমিকা, সেটি স্পষ্ট হয়েছে। তবে পুরো বিষয়টি এখনো তদন্তাধীন।

উল্লেখ্য, গত ২৫ জুলাই সোমবার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারের পাশে গাজী-কালু টিলালাগোয়া ‘নিউজিল্যান্ড’ এলাকায় বুলবুল ছুরিকাহত হন। পরে তাঁকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে রাত পৌনে আটটার দিকে চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় রাতেই সিলেট মহানগরের জালালাবাদ থানায় একটি হত্যা মামলা করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ ইশফাকুল হোসেন।

নিহত বুলবুল বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র। তাঁর বাড়ি নরসিংদী সদরের চিনিশপুরম নন্দীপাড়া গ্রামে। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের শাহপরাণ হলের ২১৮ নম্বর কক্ষে থাকতেন।




খবরটি এখনই ছড়িয়ে দিন

এই বিভাগের আরো সংবাদ







Copyright © Bangla News 24 NY. 2020